১৫ লাখ অভিবাসী নেবে কানাডা, যেভাবে করবেন আবেদন

আগামী তিন ‘বছরে কমপক্ষে ১’৫ লাখ অ’ভিবাসী নেবে অন্যতম অ’ভিবাসন-বান্ধব’ দেশ কানাডা। স্থানীয় সময় বুধবা’র (১ নভেম্বর) এ ‘সংক্রান্ত নতুন একটি প রিকল্পনা ‘ঘোষণা ক’রে ‘দেশটির সরকার। করোনা ‘ভাইরাস মহা’মারির প্র’কোপ কা’টিয়ে ‘ওঠার পর তীব্র কর্মী সঙ্ক’ট মোকা ‘বিলায় এ সিদ্ধান্ত  নেওয়া হয়েছে বলে জা’নিয়ে ছেন দেশটি’র অভিবাস নবিষয়ক মন্ত্রী ম্যাক মিলা’র। ম ঙ্গলবার (৭ নভে ম্বর) তিনি আগামী তিন বছরে  অর্থাৎ ২০২’৪ থেকে ২০২৬’ সালের মধ্যে কয় “ধাপে এই রেক’র্ড সংখ্যক অভিবা’সী নেওয়া হবে তা বিস্তা”রিত জানিয়েছেন।

তিনি ব’লেন, লক্ষ্যমাত্রা ‘পূরণে চলতি’ বছর কানাডা তার বর্তমান অ”ভিবাসন নীতি”তে আর কোন পরিবর্তন” আনবে না। তবে” আগামী তিন বছরকে সামনে রেখে নতু”ন অভিবাসন নীতি ঘোষণা করা হবে।

বর্তমান অভিবাসন পরি”কল্পনা অনুয়াযী, চলতি বছর চার লাখ ৬৫ হাজার অভিবা””সী নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে কা”না”ডার। তবে আগামী” বছর নতুন করে চার লাখ ৮৫ হাজার অভিবাসী নেবে অটোয়া। আর পরবর্তী” দুই “বছরে ৫ লাখ করে মোট ১০ লাখ অভিবা”সী নেবে কানাডা।

উত্তর আমেরিকার দেশটির অভিবাসন”বিষয়ক সরকারি ওয়েবসাইট ‘ইমিগ্রেশন কানাডা’র তথ্য “থেকে জা”না গেছে, ২০২৪ সালে অর্থনৈ”তিক শ্রেণির (ইকোন”মিক ক্লাস গ্রো) অধীনে দুই লাখ ৮১” হাজার ১৩৫ “অভিবাসী নেবে দেশটি। আর পর”বর্তী দুই বছর ২০২৫ ও ২০২৬ সা”লে এই ক্যাটাগরিতে “নেওয়া অভিবাসী”র সংখ্যা বছরপ্রতি তিন লাখ “এক হাজার ২৫০ জ”নে উন্নীত করা হবে।

আগামী বছ”র পারিবারিক শ্রেণী”তে (ফ্যামিলি ক্লাস) এক লাখ ১”৪ হাজার অভিবা”সী নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ “করেছে কানাডা, যা” বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রার ২৪ শ”তাংশ। ২০২৫ ও ২০২৬ সা”লে এই সংখ্যা বছরপ্রতি হবে এ”ক লাখ ১৮ হাজার।

 

শরণার্থী ও সুরক্ষি”ত ব্যক্তি ক্যাটা”গরিতে (রিফিউজি) চলতি বছর ৭৬ হাজার ৩০৫ জন শরণার্থী নিচ্ছে কানাডা। ২০২৪ সা”লে এই” ক্যাটাগরিতে ৭৬ হাজার ১১৫ শরণার্থী “নেওয়া হ”বে। “আর ২০২৫ ও ২০২৬ সালে প্র”তি বছর ৭২ হা”জার ৭৫০ জন শরণার্থী নেবে অটোয়া।

আবার, ২০”২৪ সালে মানবি”ক ক্যাটাগরিতে ১৩ হাজার ৭৫০ জন” অভি”বাসী নেবে কানাডা। আর ২০২৫ ও ২০২৬ সালে” এই ক্যাটা”গরিতে অভিবাসন অনুমোদনের “সংখ্যা ১৬ লাভ “করা হবে (প্রতিবছর ৮ হাজার)।

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি দম্পতি। ছবি : ফেসবুক

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি দম্পতি। ছবি : ফেসবুক

অভিবাসনবি”ষয়ক নতুন লেভে”ল প্ল্যানে এক্সপ্রেস এন্ট্রি ও পিএ””নপির (প্রভি”ন্সিয়াল নমিনি প্রোগ্রাম) আও”তা বাড়াবে অ”টোয়া। ২০২৪ সালে এক্সপ্রেস এন্ট্রির “মাধ্যমে এ”ক লাখ ১০ হাজার ৭৭০ জনকে স্থায়ীভাবে “বসবাসের অনু”মতি দেবে দেশটির ফেডারেল” সরকার। ২০২৫-২০২৬ সালে এই সংখ্যা বছরপ্রতি ১ লাখ”” ১৭ হা”জার ৫০০ জনে উন্নীত করা হবে।

এদিকে, প্রাদে”শিকভাবে (“পিএনপি) ২০২৪ সালের জন্য কানাডার “লক্ষ্যমাত্রা” হলো ১ লাখ ১০ হাজার। তবে ২০২৫-২০২৬ সালে এ”ই ক্যাটা”গরিতে প্রতি বছর ১ লাখ ২০ হাজা”র অভিবাসী” কানাডায় স্থায়ী হওয়ার সুযোগ পাবে। “অন্য”দিকে, ২০২৪ সালে ফ্যামিলি রিইউনিফেকেশন” বা ফ্যা”মিলি ক্লাস স্পন্সরশিপ (স্বামী-স্ত্রী”, পার্টনার ও” সন্তানের জন্য স্পন্সরশিপ) প্রোগ্রামের আওতায় ৮২ হাজার অভিবাসী নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা “ঠিক করেছে কানাডা। আর ২০২৫-২০২৬ সালে এই ক্যা”টাগরিতে’ প্রতি বছর ৮৪ হাজার জন্য অভিবাসন নে”বে উত্তর আমে”রিকার এ দেশ। আবার বাবা-মা, “দাদা-দাদির “জন্য পিজিপি প্রোগ্রামের আওতায়” ২০২৪ সালে”র মধ্যে ৩২ হাজার অভিবাসী নেবে কা”নাডা। পর”বর্তী দুই বছরেও এই সংখ্যা অপরিবর্তিত থাকবে।

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি তরুণী। ছবি : ফেসবুক

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি তরুণী। ছবি : ফেসবুক

কানাডার ফে”ডারেল সি”স্টেমের বাইরে থাকা কুইবেক প্রদেশও “শনিবার (৪” অক্টোবর) অভিবাসন পরিকল্পনা” ঘোষণা ক”রেছে। ফরাসি ভাষা অধ্যুষিত এ প্রদে”শ ২০২৪-২৫ “সালের মধ্যে তারা ১ লাখ অভিবাসী” নেবে। কুইবে”ক কানাডার একমাত্র প্রদেশ, যাদের “এককভা”বে স্থায়ী অভিবাসী নেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে।

 

অভিবাসীদে”র দেশ কানাডা”য় প্রতিবছর গড়ে তিন থেকে চার “লাখ মানুষ পৃ”থিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে এসে বস”বাস করেন। “কেউ আসেন সরাসরি পার্মানেন্ট রে”সিডেন্সি ভি”সা নিয়ে, কেউ শিক্ষার্থী হিসে”বে পড়তে এ”সে পড়াশোনা শেষ করে চাকরি নিয়ে এক”টি নির্দিষ্ট সময়ে”র পর পার্মানেন্ট রেসিডে”ন্সি নিয়ে এই” দেশে থেকে যান। অনেকে নিজ দেশে বি”ভিন্ন সমস্যার কা”রণে রিফিউজি হিসেবে কানাডা”য় নাগরিকত্ব “গ্রহণ করেন। কেউ ভিজিট ভিসায় এ”সে চলে যান”। আর অনেকে আসেন ওয়ার্ক পারমিট” নিয়ে। ও”য়ার্ক পারমিট নিয়ে কয়েক বছর কাজ ক”রার পর তা”রা নাগরিকত্ব লাভ করে।

উন্নত “জীবনযাপ”ন, চাকরি বা পড়াশুনার জন্য কানাডা বি”শ্বের অন্যতম” জনপ্রিয় দেশ। জীবন মানের বি”বেচনায় কানা”ডা অবস্থান শীর্ষ তিনে। কানাডা বিশ্বে”র অভিবা””সিদের এক নম্বর পছন্দনীয় দেশ হিসেবে” এরই মধ্যে” ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। “আয়তনের তু”লনায় দেশটিতে জনসংখ্যা কম এবং “রাজনৈতিক বন্ধুত্বপূর্ণ সংস্কৃতির কারণে সেখানে বসবাসকারীরা “নিরাপদ ও সুখী জীবনযাপন করেন। এজন্য পৃথিবীর বহু দেশ থেকে মানুষ কানাডা যাওয়ার চেষ্টা করে। দেশটিতে বর্তমানে ৩ কোটি ৮২ লাখ মানুষ বসবাস করে। যাদের মাথাপিছু আয় ৫২ হাজার ৮০ ডলার। দেশটির মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) হচ্ছে প্রায় ২ হাজার বিলিয়ন ডলার।

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি দুই তরুণী। ছবি : ফেসবুক

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি দুই তরুণী। ছবি : ফেসবুক

উন্নত বিশ্বের দেশ থেকেও অনেক মানুষ কানাডায় অভিবাসী হওয়ার স্বপ্ন দেখে। স্বপ্ন পূরণে অনেক সময় অবৈধ উপায় অবলম্বন করে নানা হয়রানি ও ভোগান্তির শিকার হয়। তবে অবৈধ পথে না গিয়ে বৈধভাবে কানাডা যাওয়ার নানা উপায় রয়েছে। বৈধভাবে বাংলাদেশিদেরও কানাডা যাওয়ার বিভিন্ন সুযোগ রয়েছে। কানাডা যাওয়ার সহজ ১০ উপায়ের অন্যতম হচ্ছে এক্সপ্রেস এন্ট্রি প্রোগ্রাম। নতুন অভিবাসীদের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সব থেকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্থায়ীভাবে কানাডায় বসবাসের জন্য একটি পথ হলো এক্সপ্রেস এন্ট্রি প্রোগ্রাম। এটি একটি সহজ প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে আপনি কানাডায় অভিবাসন ও কানাডার স্থায়ী বাসিন্দা হতে পারেন।

কানাডার অভিবাসন নীতিমালায় একটি কার্যকর উপায় হচ্ছে পরিবারের সদস্যের আমন্ত্রণে সেখানে যাওয়া যাকে বলে ফ্যামিলি রিইউনিফেকেশন বা ফ্যামিলি ক্লাস স্পন্সরশিপ। এর মাধ্যমে পরিবারের সদস্যরা স্থায়ীভাবে বসবাসের আমন্ত্রণ জানাতে পারে।

অনেক অভিবাসনপ্রত্যাশী ওয়ার্ক ভিসায় আবেদন করে কানাডায় চাকরির অফার নিয়ে যান। এই ক্ষেত্রে তাকে লেবার মার্কেট ইম্প্যাক্ট এসেসমেন্ট (এলএমআইএ) এর আওতায় আবেদন জমা দিতে হবে। এটি অপেক্ষাকৃত কঠিন প্রক্রিয়া। তবে এর মাধ্যমে কানাডায় স্থায়ী বাসিন্দা হওয়া সহজ হয়।

 

কানাডায় অভিবাসী হওয়ার ক্ষেত্রে পিএনপি এখন জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কানাডার প্রদেশ যেমন আলবার্টা, অন্টারিও, ব্রিটিশ কলাম্বিয়াসহ অন্যান্য প্রদেশের নিজস্ব অভিবাসন নীতিমালা রয়েছে। ফেডারেল নীতিমালার চেয়ে এই পদ্ধতিতে অনেক দ্রুত অভিবাসী হওয়া যায়। তবে এ ক্ষেত্রে কানাডায় যাওয়ার পর তাকে ওই নির্দিষ্ট প্রদেশেই বসবাস করতে হবে।

 

১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী যুবকরা ইন্টারন্যাশনাল এক্সপেরিয়েন্স কানাডা (আইইসি) এর আওতায় চাকুরির অফার লেটার ছাড়াই কানাডা যেতে পারে। তবে এই সুবিধা যেকোনো দেশের নাগরিকের জন্য নয়। কানাডায় দক্ষ কর্মী নেয়ার জন্য বিশেষ ভিসার সুবিধা চালু রয়েছে। ৩৪৭টি পেশায় এই জনবল নিয়ে থাকে কানাডা। এর মধ্যে রয়েছে, হেয়ার স্টাইলিস্ট (নরসুন্দর), বিক্রয় কর্মী এবং প্রশাসনিক সহকারী।

 

কানাডা যাওয়া আরেকটি সহজ প্রক্রিয়া স্ট্যাডি ভিসা। তবে এজন্য আপনাকে কানাডার কোনো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি প্রক্রিয়া আগেই সেরে ফেলতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি সেখানে চাকুরি করতে পারবেন শুধুমাত্র যে স্টেটে আপনি পড়ালেখা করছেন সেই স্টেটে। এই সুযোগ পৃথিবীর সব দেশের জন্য রয়েছে।

ভ্রমণ ভিসায় কানাডা যাওয়া সহজ। তবে ভিসা পাওয়া একটু কঠিন। ছুটি কাটাতে বা ভ্রমণ করতে যারা কানাডা যেতে চান তাদের ভিসা দিয়ে থাকে। কনাডা সরকার আগামী এক বছরে ইকোনমিক প্রোগ্রাম মোট ১ লাখ ৯১ হাজার ৬০০ অভিবাসী নেবে।

 

কারো যদি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকে এবং তিনি কানাডায় ব্যবসা শুরু করতে চায় তাহলে কানাডা যাওয়া তার জন্য সহজ। তবে কেউ যদি কানাডায় ব্যবসা করতে না চায় তবে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কানাডার কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের চুক্তি থাকে তবে কানাডায় যেতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *