সেলফি গদি টেকাতে পারবে না : ভিপি নুর

গণঅধিকার পরিষদের একাংশের সভাপতি ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, কথা পরিষ্কার- শেখ হাসিনাকে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে হবে। এটা বাংলাদেশ রক্ষার অস্তিত্বের লড়াই। এখান থেকে পিছু হঠা যাবে না। সেলফি এবং নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতা গদি টেকাতে পারবে না।

শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর পুরানা পল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে গণমিছিলপূর্ব সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি। বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া, গণঅধিকার পরিষদ নেতা মশিউর, ছাত্রঅধিকার পরিষদ নেতা বিন ইয়ামিনসহ সকল রাজবন্দির মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের একদফা দাবিতে গণঅধিকার পরিষদের (নুর) উদ্যোগে এই কর্মসূচি হয়।

ভিপি নুর বলেন, বিএনপিসহ বিরোধী রাজনৈতিক দলসমূহের আজকে যুগপৎ কর্মসূচি ছিলো। রামপুরা থেকে আসার পথে লক্ষ করলাম- মিছিলে লুঙ্গি পরা, মাথায় গামছা বাঁধা লোকজন। যা প্রমাণ করে- এই আন্দোলন এখন গণমানুষের আন্দোলন। কাজেই সেলফি এবং নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতার গদি টেকাতে পারবে না।

তিনি বলেন, বিরোধী দলের আন্দোলন দমনে বিভিন্ন কেলেঙ্কারির সাথে জড়িত কতিপয় দুর্বৃত্ত পুলিশ অফিসারকে ঢাকায় রাখা হয়েছে। হুমকি-ধমকি দিয়ে ভয়-ভীতি দেখিয়ে গণঅধিকার পরিষদকে একদফার আন্দোলন থেকে সরানো যাবে না। জনগণ ওইসব দুর্বৃত্তদের রুখে দিবে।

এ সময় গণঅধিকার পরিষদের নেতা মশিউর, ছাত্রনেতা বিন ইয়ামিন মোল্লা, গোপালগঞ্জের ঈসমাইল, খুলনার সাইফুল, বগুড়া যুব অধিকার পরিষদের ৮ জন নেতাকর্মীসহ অনতিবিলম্বে সকল বিরোধী নেতা-কর্মীদের মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানান নুরুল হক নুর।

গণঅধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রাশেদ খান বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দি করে রেখেছে। এখন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিরোধী দলসমূহের সিনিয়র নেতাদের সাজা দিয়ে জেলে ঢোকানোর চেষ্টা করছে। ভিন্নমতের মানুষকে রাজপথ ও ঘরছাড়া করতে মামলা-গ্রেপ্তারকে হাতিয়ার হিসেবে বেছে নিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সরকার এখন খাদের কিনারায় আছে। জনগণকে নিয়ে বড়সড় ধাক্কা দিলেই পড়ে যাবে। সুতরাং রাজপথে আন্দোলনের বিকল্প নেই। আওয়ামী লীগ জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে বিদেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে। জো বাইডেনসহ বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানের সাথে সেলফি তুলে প্রচার করছে যে, সব ম্যানেজ হয়ে গেছে। কিন্তু মার্কিন পররাষ্ট্রনীতি আর একটি সেলফির মধ্যে বহুত পার্থক্য আছে।

দলের উচ্চতর পরিষদের সদস্য আবু হানিফ বলেন, সরকার আদালতকে ব্যবহার করে গায়েবি, মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাদের আটক করে রাজনীতির মাঠ ফাঁকা করে খালি মাঠে নির্বাচন করতে চাচ্ছে। কিন্তু জনগণ আওয়ামী লীগের এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে দিবে না।

গণঅধিকার পরিষদ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক শাকিল আহমেদের সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন- দলের উচ্চতর পরিষদের সদস্য শহিদুল ইসলাম ফাহিম, ফাতেমা তাসনিম, সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক বিপ্লব কুমার পোদ্দার, মাহফুজুর রহমান খান, সাবেক যুগ্ম সদস্যসচিব আনিসুর রহমান মুন্না, ছাত্র অধিকার পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তারিকুল ইসলাম, যুব অধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নাদিম হাসান, শ্রমিক অধিকার পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *