সর্বজনীন পেনশন চালুর প্রথম দিনে জমা ৮৭ লাখ টাকা

সর্বজনীন পেনশন উদ্বোধনের পর প্রথম দিনে (বৃহস্পতিবার) অনলাইনের মাধ্যমে নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন এক হাজার ৬৬৬ জন। আর এ থেকে পেনশন ফান্ডে জমা হয়েছে ৮৭ লাখ টাকার বেশি পরিমাণ অর্থ।

 

এ ছাড়া নিবন্ধনের জন্য ওয়েবসাইট ভিজিট করেছেন ১১ হাজারের বেশি গ্রাহক। এদিকে জানা গেছে, পেনশন তহবিলের সঠিক ব্যবহার ও বিনিয়োগে খুব শিগগিরই ‘পেনশন ফান্ড ম্যানেজমেন্ট অথরিটি’ গঠন করা হবে।

 

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

সূত্রগুলো বলছে, ‘পেনশন ফান্ড ম্যানেজমেন্ট অথরিটি’ দেশের লাভজনক বড় বড় অবকাঠামোতে পেনশন তহবিলের টাকা বিনিয়োগ করবে। এতে করে পেনশনাররা লাভবান হওয়ার পাশাপাশি দেশের অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাওয়া যাবে।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, ‘দেশের বৃহত্তম অবকাঠামো পদ্মা সেতু নিজস্ব অর্থায়নে করা হয়েছে।

 

ইতোমধ্যে পদ্মা সেতু থেকে রেভিনিউ বা রাজস্ব পাচ্ছে সরকার। ঠিক এ ধরনের লাভজনক বড় বড় প্রকল্পে পেনশন তহবিলের টাকা ব্যবহার করা হবে। যেখান থেকে মুনাফা পাওয়া যাবে। এ ছাড়া সর্বজনীন পেনশন ফান্ডে অর্থায়ন করতে সম্পৃক্ত হবে ব্যাংক ও বিমা খাতও।

 

জানা গেছে, ‘আপাতত শুধু সোনালী ব্যাংকে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের হিসাব খোলা হয়েছে। কেউ চাইলে সরাসরি সোনালী ব্যাংকে গিয়েও নিবন্ধন করতে পারবেন ও চাঁদা দিতে পারবেন। তবে শিগগিরই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা কম্পিউটার সার্ভিসের দোকানগুলোতেও পেনশন আবেদনের নিবন্ধন ফরম পূরণ সংক্রান্ত কার্যক্রম শুরু করা হবে। এ ছাড়া মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পেনশন স্কিমে নাম নিবন্ধন করতে পারবেন একজন গ্রাহক।’

 

এ বিষয়ে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের বাস্তবায়নকারী সংস্থা জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের সদস্য ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. গোলাম মোস্তফা জানান, ‘পেনশন স্কিম নিয়ে যে দেশের নাগরিকরা আশাবাদী তা প্রথম দিনের সাড়া দেখেই বোঝা যাচ্ছে।

 

প্রথম দিন কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এক হাজার ৬৬৬ জন গ্রাহক নাম নিবন্ধন করে ৮৭ লাখ টাকার বেশি জমা দিয়েছেন। দ্বিতীয় দিনের হিসাব বের করা হয়নি। মনে হচ্ছে, শুক্রবার পর্যন্ত এ ফান্ডের টাকার পরিমাণ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এতে বোঝা যাচ্ছে, পেনশন স্কিমে সাধারণ গ্রাহকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করছেন।’

তিনি বলেন, ‘টার্গেট গ্রুপকে পেনশনে অন্তর্ভুক্ত করতে সরকারিভাবে আরো বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। শুধু তাই নয়, মানুষ ঘরে বসে যাতে পেনশন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারেন সেই লক্ষ্যে অনলাইন সিস্টেমটি প্রয়োজনে অত্যাধুনিক করা হবে। এখন পর্যন্ত সে রকম কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে পুরো বিষয়টির দিকে নজর রাখা হচ্ছে। নাম নিবন্ধন করে দেশের সাধারণ মানুষ পেনশন কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত হবেন। পেনশন কর্মসূচিতে যুক্ত হয়ে যে কারো লাভবান হওয়ার সুযোগ রয়েছে। সরকার নিজে এর গ্যারান্টার হচ্ছে। এ ছাড়া পুরো বিষয়টি সরকারিভাবে পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এ কারণে এটা নিয়ে কারো দ্বিধা বা সংকোচ থাকার কথা নয়।’

 

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘আমরা যে ইউনিক নাম্বার দেব প্রত্যেক পেনশনারকে, তারা কিন্তু ওই নাম্বার দিয়ে সব সময় চেক করতে পারবেন তার অ্যাকাউন্টে কত টাকা আছে। পেনশনাররা আজীবন অর্থাৎ মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পেনশন সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।’

 

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমান সরকারের পক্ষ থেকে এটি একটি যুগান্তকারী ও ঐতিহাসিক পদক্ষেপ দেশের মানুষের জন্য। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কথা বিবেচনায় নিয়ে সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি চালু করা হয়েছে। আপাতত চার শ্রেণির জনগোষ্ঠীর জন্য চার ধরনের পেনশন কর্মসূচি চালু করা হয়েছে। এসব স্কিমে যুক্ত হয়ে বেসরকারি খাতের কর্মচারী বা প্রবাসীরা তাদের মোট চাঁদার চেয়ে সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৩০ গুণ থেকে সর্বোচ্চ ১২ দশমিক ৩১ গুণ অর্থ পেনশন হিসেবে পাবেন।

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের গ্রাহকদের প্রিমিয়াম ট্রেজারি বিল, আর্থিকভাবে শক্তিশালী বাণিজ্যিক ব্যাংক ও লাভজনক অবকাঠামোয় বিনিয়োগের পরিকল্পনা করছে ন্যাশনাল পেনশন অথরিটি (এনপিএ)। এ ছাড়া পেনশন ফান্ডের টাকা ট্রেজারি বিল ও বন্ডে বিনিয়োগের কথা ভাবছে এনপিএ। এই দুই খাতে সুদের হার প্রায় ৮ থেকে ৮ দশমিক ৫ শতাংশ। যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংক সব ঋণের ওপর থেকে সীমা তুলে নিয়েছে, তাই সুনাম থাকা ব্যাংকগুলোর ফিক্সড ডিপোজিটে বিনিয়োগ করলে ভালো রিটার্ন পাওয়া যাবে। পাশাপাশি লাভজনক প্রকল্পগুলোয় বিনিয়োগ করা হলে সেখান থেকে ভালো পরিমাণে মুনাফা আসতে পারে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। পেনশন ব্যবস্থাটি যাতে সারা দেশের মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে সেই লক্ষ্যে ডিজিটাল ক্যাম্পেইন করা হবে।

 

জানা গেছে, ভবিষ্যতে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচিতে আসতে পারবেন। অর্থ মন্ত্রণালয় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বলেছে, সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদেরও সুবিধামতো সময়ে সর্বজনীন পেনশনের আওতায় আনা হবে। এ বিষয়ে সরকার সুবিধামতো সময়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করবে।

 

অর্থ বিভাগের সূত্রগুলো জানায়, যে দুটি স্কিম পরে চালু করা হবে, তার মধ্যে রয়েছে শ্রমিক শ্রেণির জন্য একটি, শিক্ষার্থীদের জন্য অন্যটি। চাঁদাদাতা তার পেনশন আইডি দিয়ে ইউনিভার্সাল পেনশন সিস্টেমে প্রবেশ করে সহজেই বছর শেষে মুনাফাসহ জমা হওয়া টাকার পরিমাণ সম্পর্কিত তথ্য জানতে পারবেন। চাঁদাদাতার বয়স ৬০ বছর হওয়ার পর তার ব্যাংক হিসাবে অথবা মোবাইল ফিনানশিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে মাসিক পেনশন দেওয়া হবে।

 

এদিকে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশের বর্তমান জনসংখ্যা প্রায় ১৭ কোটি। গড় আয়ু ৭২ দশমিক তিন বছর। ভবিষ্যতে গড় আয়ু আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশ বর্তমানে জনমিতিক লভ্যাংশের আওতায় রয়েছে। দেশের মোট জনসংখ্যার ৬২ শতাংশ কর্মক্ষম। গড় আয়ু বৃদ্ধি এবং একক পরিবারের সংখ্যা বৃদ্ধিজনিত কারণে ভবিষ্যতে নির্ভরশীলতার হার বাড়বে। এ কারণে একটি টেকসই সামাজিক নিরাপত্তা কাঠামো গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তাই সর্বজনীন পেনশন স্কিম চালু করেছে সরকার।

 

অর্থ মন্ত্রণালয় আরো জানিয়েছে, কোনো বৈদেশিক সাহায্য ও কারিগরি সহায়তা ছাড়াই এ ধরনের একটি বড় কাজ গুছিয়ে আনা হয়েছে। উদ্বোধনের পর থেকেই চারটি স্কিমে অংশগ্রহণের জন্য অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম ও মোবাইল ফিনানশিয়াল সার্ভিস, ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড ও ব্যাংকে টাকা জমা শুরু হয়েছে। এ কার্যক্রম চালু হওয়ার পর থেকে দেশ-বিদেশের বাংলাদেশি নাগরিকদের মধ্যে ভালো সাড়া পড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *