গভীর নিম্নচাপটি সন্ধ্যায় রূপ নিতে পারে সাইক্লোনে

বঙ্গোপসাগরে অব’স্থানরত গভীর নি’ম্নচাপটি বাংলাদেশের উপকূলের আ’রও কাছে এসেছে’। এটি আজ সোমবার (২৩ অক্টোবর) স’ন্ধ্যার পরে সাই’ক্লোন ‘হামুন’ ‘এ রূপ নিতে পারে। তবে’ এটি সাইক্লোনে’ রূপ নিলেও শক্তিশালী থাকবে

 

 

না বলে জানিয়ে’ছে আবহাওয়া অ’ফিস। সোমবার আবহাও’য়া অধিদপ্তরের আ’বহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে’ এ তথ্য জানান’।আব্দুর রহমান জানান, তারা এখ’নো পর্যবেক্ষ ণ করছেন। ‘সন্ধ্যার পর সাইক্লোনে রূপ নিতে’ পারে। তবে এটি ‘দুর্বল সাইক্লোনে রূপান্তরিত

 

 

হবে। গতিবেগ ৬ ২ কিলোমিটার থেcকে ৮৮ কিলোমিটারের মধ্যে থাকবে ‘।বাংলাদেশের  ‘কোন উপকূল দিয়ে যাবে এমন প্রশ্নে ‘আব্দুর রহ’মান বলেন, ‘এখনো বো’ঝা যাচ্ছে না। তবে বাংলাদেশ অ’ভিমুখেই আছে। ধারণা ‘করা হচ্ছে, বরিশাল ও চট্টগ্রাম উপ’কূলের মাঝ ব’রাবর অতিক্রম করবে এটি।

 

 

সাইক্লো’নে রূপ নিলে সতর্কসংকে’ত বাড়ানো হবে।’ এদিকে আবহাওয়া’র বিশেষ এক বিজ্ঞ’প্তিতে বলা হয়েছে, পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ‘ও তৎসংলগ্ন এলাকা’য় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি উত্ত’র দিকে অগ্রসর হয়ে’ একই এলাকায়

 

 

অবস্থান কর’ছে। এটি গত মধ্য’রাত (২২ অক্টোবর) চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থে’কে ৮৯০ কিমি প’শ্চিম-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার স”মুদ্রবন্দর থেকে “৮৪৫ কিমি পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চি”মে, মোংলা স”মুদ্রবন্দর থেকে ৭৬০ কিমি

 

 

দক্ষিণপশ্চি”মে এবং পায়রা সমু”দ্রবন্দর থেকে ৭৬০ কিমি দক্ষিণপশ্চি”মে অবস্থান ক”রছিল। এটি আরও উত্তর দিকে অগ্রসর ও “ঘনীভূত হতে পা”রে।এতে আরও বলা হয়েছে, গভীর নিম্নচা”প কেন্দ্রের ৪৮ কিমি” এর মধ্যে বাতাসের

 

 

একটানা সর্বো”চ্চ গ”তিবেগ ঘণ্টায় ৫”০ কিমি, যা দমকা অথবা ঝোড়ো “হাওয়ার আ”কারে ৬০ কিমি পর্যন্ত পাচ্ছে। গভীর নিম্ন”চাপ কেন্দ্রের “নিকটবর্তী এলাকায় সাগর উত্তাল রয়েছে।এর প্রভাবে “চট্টগ্রাম, কক্স”বাজার, মোংলা ও পায়রা

 

 

সমুদ্র বন্দরস”মূহকে ০১ (এক) নম্ব”র দূরবর্তী সতর্কসংকেত দেখিয়ে যেতে”” বলা হয়েছে।এ “ছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে” অবস্থানরত মাছ” ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূকে প”রবর্তী নির্দেশ” না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের

 

 

কাছাকাছি’ থেকে সাবধানে চলা’চল করতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে’ তাদের গভীর সা’গরে বিচরণ না করতে বলা হলো।আবহাওয়া’ অধিদপ্তরের ‘তথ্যমতে, ঝড়ের সময় বাতাসের গতিবেগ  ৬২ থেকে ৮৮ কিলোcমিটার হলে সেটি

 

 

হয় সাই ‘ক্লোন বা ঘূর্ণিঝড়। বা’cতাসের গতিবেগ ৮৮ থেকে ১১৭ হ’লে  তাকে ব’লা হয় প্রবল ঘূর্ণি’ঝড়। বাতাসের বেগ আরও  বেড়ে ১১৭ থেকে ২২০ ‘কিলোমিটার হলে তাকে বলা

 

 

হয় অতি প্রবল  ঘূর্ণিঝড়। আর  ২২০ কিলোমিটারের ওপরে বাতাসে র গতিবেগ উঠ। লে তাকে সুপার সাইক্লোন বলা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *