এক বছর আগে থেকেই হাম’লার পরিকল্পনা, জড়িত ইরান? তথ্য ফাঁস।

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল চলমান সংঘর্ষে ইরানের ভূমিকা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। তাদের প্রকাশিত প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে,

 

 

 

 

ফিলিস্তিনের সশস্ত্র গেরিলা সংগঠন হামাসের ভয়াবহ হামলার ব্যাপারে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সাহায্য করেছে ইরান।

 

 

 

 

মঙ্গলবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, এক বছর আগে থেকেই হামাসের এ হামলার পরিকল্পনা করা হয়েছে। ইরান হামাসকে সামরিক প্রশিক্ষণ,

 

 

 

 

অস্ত্র এবং অন্যান্য সহযোগিতা করেছে। এসব কাজে ব্যয় করা হয়েছে মিলিয়ন ডলার।

 

 

 

 

লেবাননের রাজধানী বৈরুতে এ আক্রমণের বিষয়ে হামাস এবং ইরান সমর্থিত হিজবুল্লাহর উচ্চ পর্যায়ের নেতাদের মধ্যে গত সপ্তাহে বৈঠক হয় বলে জানায় গণমাধ্যমটি।

 

 

 

 

এসব বৈঠকে ইরানের আইআরজিসির কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তাদের সঙ্গে হামাস ও হিজবুল্লাহসহ ইরান সমর্থিত চার সশস্ত্র গোষ্ঠীর প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

 

 

 

হামাস ও হিজবুল্লাহ সদস্যদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জানা গেছে, ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দুল্লাহ এসব বৈঠকের অন্তত দুটিতে অংশ নিয়েছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

যখন ইসরায়েল রাষ্ট্রে বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর সরকারের নানা সিদ্ধান্তে অসন্তোষ চলছিল এবং সৌদি আরবের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্ক নতুন মাত্রা পাচ্ছিল,

 

 

 

 

 

 

 

তখনই স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ এ হামলা চালানো হয়। বলা বাহুল্য, যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় এ বাড়ন্ত সম্পর্ককে হুমকি হিসেবেই দেখেছে ইরান।

 

 

 

 

 

 

 

 

রোববার (৮ অক্টোবর) এবিসি নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ব্লিঙ্কেন বলেছেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোয় ইরানের সমর্থনে হামাস আরও শক্তিশালী হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

তবে ইসরায়েলে হামাসের এই সুনির্দিষ্ট হামলায় ইরানের জড়িত থাকার কোনো প্রত্যক্ষ প্রমাণ এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র পায়নি।

 

 

 

 

 

 

 

 

এদিকে ইরানকে নিয়ে এবিসি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইরান ও হামাসের মধ্যে সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। প্রকৃতপক্ষে ইরানের কাছ থেকে বহু বছর ধরে পাওয়া সমর্থন ছাড়া হামাস ‘হামাস’ হতো না।

 

 

 

 

 

 

 

 

ইসরায়েলে হামাসের এই সুনির্দিষ্ট হামলায় ইরানের জড়িত থাকার বিষয়ে তাঁরা এখনো প্রত্যক্ষ কোনো প্রমাণ পাননি। তবে বহু বছর ধরে হামাসের প্রতি ইরানের সমর্থনের বিষয়টি স্পষ্ট।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ব্লিঙ্কেন আরও বলেন, অন্যান্য দেশে অস্থিতিশীল কর্মকাণ্ডের জন্য, সন্ত্রাসবাদে সমর্থনের জন্য তারা গত কয়েক বছর ধরে ইরানের বিরুদ্ধে শক্তভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

অতীতে হামাসকে সমর্থনের জন্য তারা ইরানের চার শতাধিক ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন।

ইসরায়েলে আবারও কয়েকশ রকেট ছোড়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *